কিসমিস খেলে কি ফর্সা হয়

কিসমিস খেলে কি ফর্সা হয় এটা অনেক মানুষেরই মনের ইচ্ছা জানার। আজকে আমরা আমদের পোস্টের মাধ্যমে তুলে ধরবো কিসমিস খেলে কি ফর্সা হয় তার সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা। কিসমিস শুধু খেতে যেমন মজাদার তেমনি এর গুনাগুণও অনেক ভাল। কিসমিস আমাদের দেহের অনেক উপকার করে। কিসমিসে আমাদের শরীর থেকে খুব সহজে টক্সিন বের করে দেয় ও চেহারা সুন্দর করে তোলে। কিসমিস খেলে চেহারায় বয়সের চাপ পড়ে নাহ বা যাদের বয়সের ছাপ পড়া শুরু হয়ছে তারা কিসমিস খেলে চেহারায় লাবাণ্য ফিরে আসে। প্রতিদিন রাতে এক মুঠ কিসমিস ভাল করে ধুয়ে তা পানিতে ভিজিয়ে রেখে সকালে পানি সহ কিসমিস খাওয়ার অভ্যাস করলে এক মাসের মধ্যেই চেহার হয়ে যাবে চাদের মতো সুন্দর। কিসমিস এমন একটা ফল যা আমাদের শরীর ভিতরে থেকে ফর্সা করে তোলে। কিসমিসে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন, মিনারেল ও ফ্যাট রয়েছে। যা আমাদের ত্বক সুন্দর করার পাশাপাশি শরীরের ওজনও বৃদ্ধি করে। তবে অতিরিক্ত কিসমিস খেলে কিছু দিনের ভিতরেই শরীর ফুলে যাবে। তাই প্রতিদিন পরিমান মতো কিসমিস খাওয়া উচিৎ। 

 

কিসমিসের উপকারিতা

  • কিসমিস আমাদের শরীরের হজম শক্তি বৃদ্ধি করে ও খাবার হজম করতে সাহায্য করে ও শরীর থেকে বিষাক্ত জাতীয় জিনিস বের করে দেই। তাই প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে কিছু কিসমিস খাওয়া ভাল। এতে করে কোষ্ঠ্যকাঠিন্য থাকলে তা সেরে যাই।
  • যাদের শরীর একদমই চিকন তারা রেগুলার কিসমিস খেলে শরীরের ওজন বাড়াতে পারবে। কারণ কিসমিসে প্রচুর পরিমাণে সুগার থাকে। 
  • নিয়মিত কিসমিস খেলে ক্যান্সার হওয়ার ঝুকি অনেকাংশে কমে যায়। 
  • কিসমিস শরীরে নতুন কোষের জন্ম দেই এবং শরীরে থাকা মরা কোষ দূর করে ত্বককে অনেক সুন্দর ও কোমল বানায়। কিসমিস শরীরের রক্ত থেকে টক্সিন দূর করে দেয় ফলে মনে হয় যে, স্কিন এখনো সতেজ। এটি বৃদ্ধভাব বা বয়েসের ছাপ কমিয়ে দেয়। 
  • চুলের উন্নতির জন্য কিসমিস খাওয়া অনেক ভাল। কিসমিস খেলে চুল ঘন কালো হয় ও নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে। কারণ কিসমিসে থাকে ভিটামিন বি, পটাসিয়াম ও আয়রন। 
  • যাদের হৃদরোগ আছে তারা প্রতিদিন কিসমিস খেলে হার্ট আট্যাকের ঝুকি কমে যাই। 
  • কিসমিস শরীরের ইনসুলিন এর মাত্রা বজায় রাখে। তাই যারা ডায়েবেটিস এর রোগী তাদের প্রতিদিন কিসমিস খাওয়া উচিৎ। 
  • রক্ত সল্পতা দূর করতে কিসমিস খাওয়া ভাল। 
  • কিসমিস আমাদের শরীরের হাড় ও দাত মজবুত করে। 
  • চোখের বিভিন্ন অসুখ থেকে কিসমিস রক্ষা করে। 

 

আরো পড়ুনঃ মাথার একপাশে ব্যথা কারণ

 

কিসমিসের  অপকারিতা

কিসমিসের যেমন অনেক গুলা উপকারী দিক রয়েছে তেমনি কিছু অপকারি দিকও আছে। এর মধ্যে একটি হলো অতিরিক্ত কিসমিস খেলে ওজন অতিরিক্ত বেড়ে যেতে পারে। আর অতিরিক্ত কিসমিস খেলে পেট খারাপ হতে পারে। এবং মাত্রা অতিরিক্ত কিসমিস খেলে হার্ট আট্যাক হতে পারে। 

 

 

ফর্সা হওয়ার জন্য কিসমিসের পাশাপাশি যা খাবেন

আমরা ইতেমধ্যে জানতে পেরেছি যে কিসমিস আমাদের শরীরের জন্য কতটা উপকারী। এই কিসমিস আমাদের ত্বক যেমন ফর্সা করতে সাহায্য করে তেমনি এখানে আরো কিছু খাবারের নাম তুলে ধরা হলো যা আমাদের ত্বক উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। ব্রকলি, টমেটো, পালং শাক, মিষ্টি ‍আলু ও করলা ইত্যাদি খাবার ত্বককে ভিতর থেকে ফর্সা করে। এছাড়াও চিজ, দুধ, টক দই, আর প্রোটিনের মধ্যে মাংস, ডিম, মাছ ইদ্যাতি খাবার শরীরকে যেমন ভালো রাখে তেমনি ত্বক কেও উজ্জ্বল করতে সাহায্য করে। 

 

 

বন্ধুরা আজকে আমরা জেনেছি কিসমিস খাওয়ার উপকারীতা ও অপকারীতা এবং জানতে পেরেছি কিসমিস খেলে কি ফর্সা হয় কিনা। আশা করছি আজকের পোস্ট আপনাদের সবার ভাল লেগেছে। আর ভাল লেগে থাকলে অবশ্যই আপনার বন্ধুদের কাছে এই পোস্টি শেয়ার করবেন। 

 

Leave a Comment